• image missing
  • image missing

স্টার্টআপ বাংলাদেশ থেকে ৫ কোটি টাকা বিনিয়োগ পেলো শেয়ারট্রিপ

নিজেদের তৃতীয় বর্ষপূর্তী অনুষঠানে স্টাটআপ বাংলাদেশ থেকে ৫ কোটি টাকার বিনিয়োগ পেলো দেশের সবচেয়ে বড় ও শীর্ষস্থানীয় অনলাইন ট্রাভেল এজেন্ট (ওটিএ) শেয়ারট্রিপ। রবিবার  (৭ আগস্ট) রাজধানীর হোটেল শেরাটন ঢাকায়  এ বিষয়ে একটি সমঝোতা চুক্তি হয়েছে।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের উপস্থিতিতে শেয়ারট্রিপের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া হক এবং স্টার্টআপ বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সামি আহমেদ এই চুক্তিপত্র বিনিময় করেন। এসময় শেয়ারট্রিপের অপর সহ প্রতিষ্ঠাতা কাশেফ রহমানও উপস্থিত ছিলেন।

বিনিয়োগের আগে স্টার্টআপ বাংলাদেশের সামি আহমেদ তার বক্তব্যে দেশের প্রথম ওটিএ প্রতিষ্ঠান হিসেবে শেয়ার ট্রিপ ইউনিকর্ন হয়ে উঠবে। তিনি বলেন, ”স্টার্টআপ ইকোসিস্টেমকে সহায়তা করার জন্য স্টার্টআপ বাংলাদেশ যাত্রা শুরু করে। স্টার্টআপ বাংলাদেশ ফান্ডিং দেওয়ার পাশাপাশি স্টার্টআপগুলোকে অন্যান্য ফান্ডিং পেতে সাহায্য করে। শেয়ার ট্রিপ সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তি এবং দেশীয় জনবলে তাদের অপারেশন পরিচালনা করছে। আমি আশা করি বাংলাদেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে ইন্টারন্যাশনাল ওটিএ প্লাটফর্ম হিসেবে সফল হবে শেয়ারট্রিপ।”

এর মাধ্যমে শেয়ারট্রিপ-ই দেশের প্রথম পর্যটন খাতে বিনিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃতি পায়। পর্যটন খাতের সকল ক্ষেত্রে এ ওটিএ যাতে এগিয়ে যেতে পারে, তাই শেয়ারট্রিপে কৌশলগত এ বিনিয়োগ করা হয়| পর্যটন খাতে একটি প্রভাবশালী ভূমিকা পালনের এবং এর অগ্রগতিকে আরও ডিজিটালাইজড করার
লক্ষ্যে, স্টার্টআপ বাংলাদেশ ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যমানের প্রতিষ্ঠান শেয়ারট্রিপে বিনিয়োগ করেছে।

অনুষ্ঠানে শেয়ারট্রিপ এর ভ্রমণ ও পর্যটন সম্পর্কিত অংশীদার প্রতিষ্ঠানগুলোকে ২০২০-২০২১ সালে সার্বিক সহায়তা ও নানা ক্ষেত্রে অবদান রাখার জন্য সৌহার্দ্যপূর্ণ আংশিদারিত্বের প্রতীক স্বরূপ পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে সম্মানিত করা হয়। পর্যটন খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে থেকে শেয়ারট্রিপ প্রথমবারের মতো এর সাপ্লায়ার এবং ব্যবসায়িক অংশীদারদের মধ্যে এই পুরস্কার প্রদান করে।

অংশীদার প্রতিষ্ঠানদের প্রচেষ্টাকে স্বীকৃতি জানাতে এক্সেমপ্লারি পারফর্মিং ক্যাটাগরিতে এয়ারলাইন ইন সাউথ এশিয়া, সাউথ-ইস্ট এশিয়া, আমেরিকাস, ইউরোপ, ওশেনিয়া, মিডল ইস্ট ও সেন্ট্রাল এশিয়া, এশিয়া রিজিওনস এবং বাংলাদেশ, লিডিং ক্যাম্পেইন পার্টনার, লিডিং ট্র্যানজ্যাকশন পার্টনার, বেস্ট কমার্শিয়াল পার্টনার, বেস্ট পারফর্মিং এজেন্ট সহ আরও অন্যান্য অনেক বিভাগে এই পুরস্কার ঘোষণা করা হয়।

এছাড়াও, গ্রাহকদের পছন্দ জানার জন্য, তিন দিনব্যাপী পরিচালিত এক জরিপের দশ হাজারেরও বেশি মতামতের ভিত্তিতে শেয়ারট্রিপ পিপল’স চয়েস এয়ারলাইন এবং পিপল’স চয়েস হোটেল খাতে স্বীকৃতি প্রদান করেছে।

প্রসঙ্গত, দেশজুড়ে ৫ লাখেরও বেশি গ্রাহকদের সেবা প্রদান করেছে শেয়ারট্রিপ | ৫ হাজারেরও বেশি এজেন্ট ব্র্যান্ডটির জন্য কাজ করে, যা অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ভ্রমণকে আরও সহজ করে তোলে। শেয়ারট্রিপ বিশ্বাস করে, দেশে এখনও ডিজিটাইজেশনের বিশাল
সুযোগ রয়েছে। বর্তমান পর্যটন খাতের মোট অনলাইন কার্যক্রমের প্রায় ৫০ শতাংশের অধিক পরিচালনা করে শেয়ারট্রিপ। এ খাতে ডিজিটালাইজেশন এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে থাকাতে গ্রাহকরা অনেক পরিষেবা এবং সুবিধা থেকে বঞ্চিত থাকছেন। আইসিটি বিভাগ, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মতো অংশীজন ও অংশীদারদের সাথে হাত মিলিয়ে, শেয়ারট্রিপ বৈশ্বিকভাবে স্বদেশী প্রযুক্তির উৎকর্ষের সুযোগ প্রসারিত করে বিদেশি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার সুযোগ তৈরি করতে চায় |

Source: https://digibanglatech.news/

দেশের স্টার্টআপগুলোয় ১৫ লাখ তরুণের কর্মসংস্থান হয়েছে

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, আইসিটি বিভাগ থেকে সাড়ে ৩০০ স্টার্টআপকে অফেরতযোগ্য ১০ লাখ টাকা করে অনুদান দেয়া হয়েছিল। এদের মধ্যে কিছু কিছু স্টার্টআপ কোম্পানি ৫ বছরেই শত মিলিয়ন ডলারের কোম্পানিতে রূপান্তরিত হয়েছে। দেশে বর্তমানে ২ হাজার ৫০০ সফল স্টার্টআপ কোম্পানি ১৫ লক্ষ তরুণের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে।

প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ মিলনায়তনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লিমিটেড এবং বাংলাদেশ স্টার্টআপ কোম্পানি লিমিটেডের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে ‘টেক স্টার্টআপ এবং গ্রোথ স্টেজ কোম্পানিগুলোর জন্য সম্ভাবনা এবং সুযোগ’ শীর্ষক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইসিটি বিভাগ প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়ে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশনকে বিশ্বের নেতৃত্বদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলা হবে। এ লক্ষ্যে ৭-১০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় করে বিএসইসি’র জন্য বেশ কিছু ডিজিটাল সল্যুশন তৈরি করা হচ্ছে।

তিনি বলেন বিকাশ দেশের প্রথম ইউনিকর্ন হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। বিশ্ব বিখ্যাত নামকরা বড় বড় ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করছে। মাত্র গত ৫ বছরে আমাদের বাংলাদেশ স্টার্টআপে ৭৫০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ এসেছে। বাংলাদেশের প্রতি সারাবিশ্বের বিনিয়োগকারীদের একটা নজর রয়েছে। তারা মনে করছে বাংলাদেশ ইকোনমি গ্রো করছে, বাংলাদেশে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে উঠেছে। তাই বাংলাদেশে বিনিয়োগ তাদের জন্য লাভজনক হবে।

পলক বলেন, প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা ৫০০ কোটি টাকা দিয়ে স্টার্টআপ কোম্পানি গঠন করে দিয়েছেন। তার মধ্যে ১৫-২০ কোম্পানিতে প্রায় ১০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে ৫০০ কোটি টাকা দেশের স্টার্টআপ কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা হবে।

Full News Source: https://dhakamail.com/

শুভ জন্মদিন ডিজিটাল বাংলাদেশের আর্কিটেক্ট, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক মাননীয় উপদেষ্টা, পরিবর্তিত বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার নায়ক সজীব ওয়াজেদ জয়।

আপনার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ও প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনায় একটি স্বল্পোন্নত বাংলাদেশ আজ প্রযুক্তি নির্ভর মধ্যম আয়ের ডিজিটাল বাংলাদেশ। আপনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ ইলেকট্রনিক ডিভাইস উৎপাদন ও রপ্তানিকারক দেশ।
আপনার সুদক্ষ নেতৃত্বে বদলে গেছে বাংলাদেশের তরুন প্রজন্ম। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহৎ অনলাইন ওয়ার্কফোর্স সরবরাহকারী দেশ। আপনার নেতৃত্বে ডিজিটাল বাংলাদেশের আইসিটি অবকাঠামোর উপর ভিত্তি করে বাংলাদেশের তরুন প্রজন্ম গড়ে তুলেছে বিশ্বমানের উদ্যোক্তা সংস্কৃতি।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, আপনার হাত ধরেই ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা গড়ে তুলবো একটি সাশ্রয়ী, টেকসই, উন্নত ও প্রযুক্তি নির্ভর জ্ঞানভিত্তিক স্মার্ট বাংলাদেশ।

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে স্টার্টআপ বাংলাদেশ ।

পরিবর্তিত বিশ্ব পরিস্থিতির কারণে জ্বালানি সংকট নিরসনে বাংলাদেশ সরকার পরিকল্পিত লোডশেডিং সহ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকারের এই আহ্‌বানের সাথে একাত্মতা জানায় স্টার্টআপ বাংলাদেশ। উল্লেখ্য স্টার্টআপ বাংলাদেশ গত বছরের তুলনায় বিদ্যুৎ বিল কমিয়েছে ২৫ শতাংশ।
সুতরাং আসুন, একজন দায়িত্বশীল নাগরিক হিসেবে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে আরও মনোযোগী হই। দেশের এই সাময়িক সংকট উত্তরণে সবাই মিলে এগিয়ে যাই।

Eid Mubarak to all. Wishing you and your loved ones a very happy & peaceful Eid -Ul-Adha!!

চারটি ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির বিকাশে কাজ শুরু করতে হবে: সজীব ওয়াজেদ জয়

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, উন্নত, সমৃদ্ধ ও আত্মনির্ভরশীল বাংলাদেশের ভবিষ্যতের জন্য আমরা চারটি প্রযুক্তির ওপর নজর দিতে চাই। মাইক্রোপ্রসেসর ডিজাইন, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, রোবটিক্স এবং সাইবার সিকিউরিটি; এই চারটি প্রযুক্তির বিকাশ ও সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য আমাদের এখনই কাজ শুরু করতে হবে।

বুধবার বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের বোর্ড অব গভর্নরস -এর দ্বিতীয় সভায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন আইসিটির উপদেষ্টা।

বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের বোর্ড অব গভর্নেন্সের-এর সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে সভায় সভাপতিত্ব করেন।

আইসিটি উপদেষ্টা বলেন, ইন্ডাস্ট্রি, ডিফেন্স টেকনোলজি, অ্যাগ্রিকালচারসহ ভবিষ্যৎ পৃথিবীর প্রত্যেকটা সেক্টর আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ও রোবটিক্স নির্ভর হবে। তাই নিজেদের সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বিশ্ববাজারে রপ্তানি ও আত্মনির্ভরশীল হওয়ার জন্য এখন থেকেই আমাদের পরিকল্পনা ও কাজ করতে হবে।

দেশ এবং বিশ্বের প্রয়োজন মেটাতে মাইক্রোপ্রসেসিং, আর্টিফিশিয়্যাল ইন্টিলিজেন্স, রোবটিকস এবং সাইবার সিকিউরিটিতে বাংলাদেশ আত্মনির্ভরশীল হতে কাজ শুরু করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এক্ষেত্রে শুধু মাইক্রোপ্রসেসর ডিজাইনে অন্যান্য দেশকে ধরতে বাংলাদেশের একটু সময় লাগলেও বাকি তিনটিতে বাংলাদেশ বিশ্বের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে সক্ষম।

উপদেষ্টা বলেন, ভবিষ্যতে যে কী টেকনোলজি আমাদের দেশের জন্য এবং বিশ্বের জন্য প্রয়োজন হবে সেখানে আমাদের আত্মনির্ভরশীল হওয়ার অত্যন্ত প্রয়োজন। সেই লক্ষ্য নিয়েই মাইক্রোপ্রসেসিং, আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স, রোবটিক্স এবং সাইবার সুরক্ষায় আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিচ্ছি।

তিনি বলেন, মাইক্রোপ্রসেসিং ডিজাইন ও ম্যানুফ্যকচারিংয়ে বর্তমানে পুরো বিশ্ব ২-৩টি দেশের ওপর নির্ভরশীল। ভবিষ্যৎ ডিজিটাল দুনিয়ার জন্য সবকিছুতেই আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স কিছু না কিছু চলে আসছে। বর্তমানে আমাদের অন্য দেশ থেকেই এই টেকনলোজি আনতে হচ্ছে। আমার ধারণা, ভবিষ্যতে সবক্ষেত্রেই রোবটিক্সের ব্যবহার হবে। ইন্ডাস্ট্রির পাশাপাশি প্রতিরক্ষা, কৃষি সবক্ষেত্রেই রোবট শ্রমবাজার টেক ওভার করবে। তাই আমরা যদি নিজেদের রোবটিক টেকনলোজি ডেভেলপ করতে পারি, তখন আমাদের অন্যদের ওপর নির্ভরশীল হতে হবে না।

তিনি আরও বলেন, অর্থনীতি যেহেতু ডিজিটাল হয়ে যাচ্ছে, সেক্ষেত্রে সাইবার সুরক্ষায় সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। যদিও আমাদের দেশে এই চারটি ক্ষেত্রে কিছু কিছু টেকনলোজি আবিষ্কার হচ্ছে। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে অন্যদের ওপর নির্ভরশীল।

এই নির্ভরশীলতা কাটাতে প্রয়োজনীয় এসব প্রযুক্তিতে তরুণদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে আইসিটি উপদেষ্টা বলেন, আইওটি ও রোবটিক্সে অন্যান্য দেশ খুব একটা এগিয়ে যেতে পারেনি। এটা নতুন প্রযুক্তি। তাই এটা আমরা সহজেই ধরে ফেলতে পারব। তিনি বলেন, মাইক্রোপ্রসেসরে যেসব দেশ এগিয়ে গেছে, তাদের ধরতে আরও ২০ বছর সময় লাগলেও আমাদের আজ থেকেই কাজ শুরু করতে হবে। ভবিষ্যতের মাইক্রোপ্রসেসর টেকনোলজিতেও আশা করি আমরা এগিয়ে যেতে পারব।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে আরও গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, সভা পরিচালনা করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এনএম জিয়াউল আলম।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, বন ও জলবায়ু মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন ও ভূমিমন্ত্রী সাঈফুজ্জামান চৌধুরী, বোর্ড অব গভর্নেন্সের সদস্য, বিসিএস, বেসিস ও বাক্কো সভাপতি, আইসিটি বিভাগ, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

Source: https://samakal.com/

Bangladesh Startup Ecosystem 2021-22

The Bangladesh Startup Ecosystem has experienced incredible growth over the last decade boasting 1,200+ active startups, which have raised over $800Mn investments, prominently in sectors like Fintech, Logistics & Mobility, and eCommerce. In the first half of 2022, Bangladeshi startups raised over $90Mn.

Want to learn more profound insights into the ecosystem?
Startup Bangladesh Limited, in partnership with LightCastle Partners, Anchorless Bangladesh, Bangladesh Angels and BD Startup Founders Group presents the latest report, “Bangladesh Startup Ecosystem 2021-21”.

Download the Full Report – https://www.startupbangladesh.vc/wp-content/uploads/2022/07/Bangladesh-Startup-Ecosystem-2021-22.pdf

 

 

Join the biggest mobile application hackathon and win prize money worth 𝟱 𝗟𝗮𝗸𝗵𝘀

Join the biggest mobile application hackathon and win prize money worth 𝟱 𝗟𝗮𝗸𝗵𝘀! Open for all!
The national app store of the country, bdapps in strategic partnership with Startup Bangladesh Limited, has inaugurated the National Hackathon 2022 to look for world-class mobile applications and young app developers from around the country.
🏆 Register now at: nh22.bdapps.com

Banglalink holds seminar on startup ecosystem in collaboration with Startup Bangladesh

Banglalink held a seminar titled “Road to New Digital Ecosystem – Developing Tech Entrepreneurs” in collaboration with Startup Bangladesh on Monday at the BCC auditorium in Agargaon.

Senior Secretary of the Information and Communication Technology Division NM Zeaul Alam were present at the seminar as the chief guest. Sami Ahmed, managing director of Startup Bangladesh and Taimur Rahman, chief corporate & regulatory affairs officer of Banglalink were also present at the seminar, reads a press release.

The speakers discussed how the local startup ecosystem can benefit from AppLink, a digital service marketplace recently launched by Banglalink. A digital marketplace like Applink can help app developers use the necessary tools to monetize their apps. The speakers also spoke about the role of digital service providers like Banglalink in developing local startups and encouraging digital entrepreneurs.

The seminar started with an opening speech by Taimur Rahman, followed by a presentation on Banglalink.

Sami Ahmed, managing director of Startup Bangladesh and NM Zeaul Alam, senior secretary of the Information and Communication Technology Division also delivered their speeches on the country’s startup scene. The seminar concluded with a Q&A session and a crest-giving ceremony.

NM Zeaul Alam said: “It’s great to see how Banglalink is encouraging our young IT professionals through its homegrown digital platform. By utilizing such platforms, they can contribute to the development of the IT sector as well as establish themselves as successful entrepreneurs. The talented youth can unleash their potential in tech entrepreneurship if they get the opportunity to connect with the market.”

Sami Ahmed said: “Leading digital service providers have a significant role in shaping the tech and startup ecosystem in Bangladesh. With their support, our promising IT entrepreneurs will be able to unleash their true potential. We appreciate the initiative Banglalink has taken and hope more companies like Banglalink will come forward to take initiatives like AppLink.”

Taimur Rahman said:  “With a goal to empower our local tech talents, Banglalink launched its homegrown platform AppLink. We also want to close the gap between the developers and the consumers by making a truly local digital service marketplace. I invite our talented young IT professionals to develop more locally-focused services leveraging the facilities of AppLink.”

Banglalink will continue to support local tech talents with a view to building a more sustainable IT industry in future.

Source: https://www.dhakatribune.com/

Road to New Digital Ecosystem-Developing Tech Entrepreneurs

“Road to New Digital Ecosystem-Developing Tech Entrepreneurs”
Banglalink Digital Communications Limited, in strategic partnership with Startup Bangladesh Limited, is organizing this event to show the commitment of Banglalink Digital and Startup Bangladesh Limited towards developing local Startups and encouraging the entrepreneurial spirit of local tech talents.
Date: 27th June 2022,
Time: 3:00pm.
[the event will be broadcasted live from our social media pages]
In this event, it will be discussed how Startups can monetize from AppLink. It will be shared through the short workshop to showcase how AppLink provides a streamlined approach for local developers to make apps available for download by Banglalink customers and gives them a convenient way to monetize their apps while following local regulations.
Speakers:
1. NM Zeaul Alam PAA, Senior Secretary, Information and Communications Technology Division will be attending the program as the Chief Guest.
2. Sami Ahmed, Managing Director, Startup Bangladesh Limited will be attending the program as a special guest.
3. Taimur Rahman, Chief Corporate & Regulatory Affairs Officer, Banglalink Digital Communications Limited.